এক নজরে বাংলাদেশের যত ফাইনাল

ক্রিকেট দুনিয়া 16 May 2019 at 3:16pm 575
Googleplus Pint
এক নজরে বাংলাদেশের যত ফাইনাল
আরো একটি ফাইনাল! আগামীকাল ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে উইন্ডিজের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। এই নিয়ে এটি বাংলাদেশের সপ্তম ফাইনাল। তবে ফাইনালে কখনো জয়ের মুখ দেখা হয়নি বাংলাদেশের৷ তবে এবার কি সফলতার মুখ দেখবে টাইগাররা? চলুন এক নজরে দেখে নেয়া যাক বাংলাদেশের যত ফাইনাল :

ত্রিদেশীয় সিরিজ, ২০০৯
স্বাগতিকদের ভূমিকায় থাকা বাংলাদেশ এই সিরিজে আতিথেয়তা করেছিল শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়েকে। সেবারই প্রথম কোনো ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল খেলেছিল বাংলাদেশ। ৬ রানে লঙ্কানদের ৫ উইকেটের পতন ঘটিয়ে প্রথম ফাইনালেই বাজিমাত করার সুবর্ণ সুযোগ সৃষ্টি হয়েছিল। তবে ম্যাচের শেষদিকে রুবেল হোসেনের বোলিংয়ে মুত্তিয়া মুরালিধরনের তাণ্ডব শ্রীলঙ্কাকে ২ উইকেটে জিতিয়ে দেয় মোহাম্মদ আশরাফুলের নেতৃত্বাধীন টাইগারদের বিপক্ষে। বাংলাদেশের ফাইনাল-দুঃস্বপ্নের সে-ই শুরু।

এশিয়া কাপ, ২০১২
এশিয়া কাপের সেই আসরে বাংলাদেশ ছিল স্বাগতিকের ভূমিকায়। ভারত ও শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে বাংলাদেশ জায়গা করে নেয় ফাইনালে। পাকিস্তানের ২৩৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে জয়ের খুব কাছেই পৌঁছে গিয়েছিল মুশফিকুর রহিমের দল। তবে শেষপর্যন্ত ২ রানের পরাজয় বরণ করে নিতে হয়। খুব কাছে গিয়ে এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের সুযোগ হারানোর বেদনায় সেদিন অঝোর ধারায় কেঁদেছিলেন ক্রিকেটাররা, যা এখনো দেশের ক্রিকেটের ইতিহাসের অন্যতম বেদনাদায়ক ঘটনা।

এশিয়া কাপ, ২০১৬
সেবারও এশিয়া কাপের আয়োজক ছিল বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তানের মত দলকে হারিয়ে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল নিশ্চিত করে ফাইনাল। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের সেই ফাইনালে অবশ্য বাংলাদেশ প্রতিপক্ষ ভারতের কাছে পাত্তা পায়নি। ব্যাটিং ব্যর্থতার দিনে ঘরের মাঠে হজম করতে হয় ৮ উইকেটের পরাজয়।

ত্রিদেশীয় সিরিজ, ২০১৮
এ যেন ২০১২ ত্রিদেশীয় সিরিজের পুনরাবৃত্তি। বাংলাদেশ ফাইনালে উঠে শ্রীলঙ্কাকে একটি ম্যাচে হারিয়ে, লঙ্কানরা আবার একটি ম্যাচে হেরে বসে জিম্বাবুয়ের কাছে। ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে মাত্র ২২১ রানে আটকে প্রথম ফাইনাল জয়ের মোক্ষম সুযোগও এসেছিল সামনে। কিন্তু ৭৯ রানের বড় ব্যবধানে হেরে গিয়ে আরও একবার ব্যর্থতার ঢেউয়ে পর্যবসিত হয় টাইগাররা।

নিদাহাস ট্রফি, ২০১৮
বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম স্মরণীয় টুর্নামেন্ট বা ত্রিদেশীয় সিরিজ এটি। স্বাগতিক শ্রীলঙ্কাকে দুইবার হারিয়ে বাংলাদেশ নিশ্চিত করে ফাইনাল। দু’টি ম্যাচই উত্তাপ ছড়িয়েছিল মাঠ থেকে শুরু করে গ্যালারি কিংবা অনলাইন জগৎ পর্যন্ত। ফাইনালে বাংলাদেশের সামনে ছিল ভারত, যে দলে ছিলেন না বিরাট কোহল ও মহেন্দ্র সিং ধোনির মত সিনিয়র খেলোয়াড়রা। রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন দল টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের সেই ফাইনালে বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেওয়া ১৬৭ রান তাড়া করতে নামে। সৌম্য সরকারের করা শেষ ওভারে প্রায় জিতেই গিয়েছিল টাইগাররা। তবে শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে কাঙ্ক্ষিত ৫ রানের দেখা পেয়ে যান দীনেশ কার্তিক। ফলে বাংলাদেশ হারে ৪ উইকেটে।

এশিয়া কাপ, ২০১৮
একই বছর আরেক ফাইনালে প্রতিপক্ষ হিসেবে আবারো ভারতকেই পায় বাংলাদেশ। মাত্র ২২২ রানের পূঁজি নিয়েও ওয়ানডে ফরম্যাটের ফাইনালে ভারতকে কোণঠাসা করে ফেলেছিল বাংলাদেশের বোলিং লাইনআপ। তবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের করা ইনিংসের শেষ বলে ভারত তুলে নেয় ৩ উইকেটের জয়।

৭ ’ সংখ্যাকে বলা হয় সৌভাগ্যের নম্বর। বাংলাদেশ দাঁড়িয়ে আছে নিজেদের সপ্তম ফাইনালের সামনে। অতীত ইতিহাসে স্বস্তির সংবাদ না থাকায় ‘ফাইনাল’ থেকে বাংলাদেশের প্রেরণা খুঁজে নেওয়ার সুযোগ নেই। তবে চলমান ত্রিদেশীয় সিরিজে টাইগারদের যেমন পারফরম্যান্স, তাতে তো উইন্ডিজের চেয়ে বাংলাদেশই বেশি ফেভারিট। মাশরাফি-সাকিবরা কি পারবেন ফাইনালের ফাঁড়া কাটাতে? সপ্তম ফাইনাল সত্যিকার অর্থেই ‘লাকি সেভেন’ হয়ে উঠবে তো!

সূত্রঃ স্পোর্টসজোন২৪
Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 0 - Rating 0 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)