ওয়ানডে ক্রিকেটে সেরা ১০ উইকেট শিকারি বোলার

ক্রিকেট দুনিয়া 09 Apr 2019 at 4:08pm 538
Googleplus Pint
ওয়ানডে ক্রিকেটে সেরা ১০ উইকেট শিকারি বোলার
ক্রিকেট গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা। ক্রিকেট মানেই রেকর্ডের ছড়াছড়ি। ওয়ানডে ক্রিকেটে কিছু বোলার এমনই কিছু রেকর্ড গড়েছেন যা এখনও অক্ষতই রয়ে গেছে। চলুন একনজরে দেখে নিই, ওয়ানডে ক্রিকেটে সেরা ১০ উইকেট শিকারি বোলারের তালিকা-

১. মুত্তিয়া মুরালিধরন – ৫৩৫টি

ক্রিকেট ইতিহাসে মুরালিধরন সফলতম একজন বাঁ-হাতি স্পিনার। তাঁর ঘূর্ণিতে এই পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ধরাশায়ী হয়েছে ব্যাটসম্যানরা। তিনি ওয়ানডে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি। শ্রীলঙ্কার এই স্পিনার ৩৫০ ম্যাচ খেলে মত উইকেট শিকার করেছেন ৫৩৪টি। তাঁর সেরা বোলিং ফিগার ২০০০ সালের ২৭ অক্টোবরের শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ইন্ডিয়ার বিপক্ষে ২৩ রানের বিনিময়ে ৭ উইকেটের।

২. ওয়াসিম আকরাম – ৫০২টি

ওয়াসিম আকরাম ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা বোলারদের একজন। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৩৫৬ ম্যাচে ৫০২টি উইকেট নিয়ে তিনি ২য় সর্বোচ্চ উইকেটধারী। তাকে রিভার্স সুইং এর উদ্ভাবক হিসেবে গণ্য করা হয়। তাই তাঁর ছন্দনাম দেয়া হয় সুলতান অব সুইং। তিনি পাকিস্তানের ১৯৯২ ক্রিকেট বিশ্বকাপ জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেন। তাঁর সেরা বোলিং ফিগার ১৯৯৩ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৯৯৩ সালের ২৪ ডিসেম্বরে ১৫ রানের বিনিময়ে ৫ উইকেট।

৩. ওয়াকার ইউনুস – ৪১৬টি

ওয়াকার ইউনুসকে বিশ্ব ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বকালের সেরা ফাস্ট বোলারদের একজনরূপে গণ্য করা হয়। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ২৬২টি ম্যাচ খেলে ৪১৬টি উইকেট নিয়ে তিনি ৩য় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি। ২০০১ সালের ১৭ জুন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৬ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিয়ে ইনিংসটি ছিল তাঁর বোলিং ক্যারিয়ার সেরা।

৪. চামিন্দা ভাস – ৪০০টি

চামিন্দা ভাস শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট ইতিহাসে তিনিই সেরা ফাস্ট বোলারের মর্যাদা পেয়েছেন। ‘সবচেয়ে আকর্ষণীয় ও নতুন বলে সবচেয়ে কার্যকরী সফলতম শ্রীলঙ্কান বোলার’ হিসেবে তাকে গণ্য করা হয়। তিনি একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আট উইকেট লাভকারী বিশ্বের একমাত্র বোলার। ইনিংসটি ছিল ৮ই ডিসেম্বর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। শ্রীলঙ্কার বাঁ-হাতি এই পেসার ৩২২ ম্যাচ খেলে ৪০০ উইকেট শিকার করেছেন।

৫. শহিদ আফ্রিদি – ৩৯৫টি

ক্রিকেট বিশ্বে শহিদ আফ্রিদি এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। ব্যাটিং সুনামের পাশাপাশি বোলিং দিয়েও তিনি অনেক কৃতিত্ব অর্জন করেছেন। ওয়ানডে ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি ছয় রেকর্ডটি রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। আফ্রিদি নিজেকে একজন ব্যাটসম্যানের চেয়ে বেশি বোলার মনে করেন। পাকিস্তানের এই অলরাউন্ডার ৩৯৮টি ম্যাচ খেলে মোট উইকেট নিয়েছেন ৩৯৫টি। ১৪ জুলাই, ২০১৩ তারিখে তিনি ১২ রানে ৭ উইকেট নিয়ে নিজস্ব সেরা ও একদিনের ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বিতীয় সেরা বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন। প্রভিডেন্স স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত প্রথম ওডিআইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বিরুদ্ধে তিনি এ রেকর্ড স্থাপন করেন।

৬. শন পলক – ৩৯৩টি

শন পলক সাউথ আফ্রিকার অন্যতম একজন পেসার। তিনি মাত্র ৩০৩ ম্যাচ খেলে ৩৯৩ উইকেটের মালিক। তাঁর ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগার ২৪ জানুয়ারি ১৯৯৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৩৫ রানের বিনিময়ে ৬ উইকেট নিয়ে।

৭. গ্লেন ম্যাকগ্রা – ৩৮১টি

গ্লেন ম্যাকগ্রা ক্রিকেটের ইতিহাসে, সর্বাপেক্ষা উচ্চভাবে বিবেচিত এক ফাস্ট বোলার এবং মধ্য ১৯৯০ থেকে ২০০৮ বিশ্ব ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়ার কৃর্তৃত্বে একজন নেতৃত্বদানকারী। তিনি ফাস্ট বোলারদের মধ্যে টেস্টে সর্বোচ্চ উইকেটের নেওয়ার পৃথিবী রেকর্ডের অধিকারী। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মাত্র ২৫০ ম্যাচ খেলে তিনি ৩৮১টি উইকেট গ্রহণ করেছেন। ২০০৩ সালের বিশ্বকাপে তিনি নামিবিয়ার বিপক্ষে ১৫ রানের বিনিময়ে ৭ উইকেট গ্রহণ করেছিলেন। যেটি ছিল তাঁর সেরা বোলিং ফিগার।

৮. ব্রেট লি – ৩৮০টি

অস্ট্রেলিয়া দলে অবস্থানকালীন সময়ে ব্রেট লিকে খুবই দ্রুতগতির ফাস্ট বোলার হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছিল। তাকে সর্বকালের অন্যতম সেরা ফাস্ট বোলার হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ২০০৫ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিনি ১০১.১ মাইলে বল করেন, যা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ২য় দ্রুততম বল। বল নিক্ষেপের ক্ষেত্রে তাঁর অবস্থান পাকিস্তানের শোয়েব আখতারের পর। তাই তাঁর ছন্দ নাম দ্য স্পিডস্টার। মাত্র ২২১ ম্যাচ খেলে তিনি মোট উইকেট নিয়েছেন ৩৮০টি। তাঁর ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগার ২০০৬ সালের ২০ জানুয়ারি সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে ২২ রানের বিনিময়ে ৫ উইকেট।

৯. অনিল কুম্বলে – ৩৩৭টি
অনিল কুম্বলে ভারতের একমাত্র বোলার যিনি একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে রতের সর্বোচ্চ উইকেট ধারী খেলোয়াড়। তিনি ২৭১টি ম্যাচ খেলে মোট ৩৩৭টি উইকেত শিকার করেছেন। তাঁর ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগার ২৭ নভেম্বর ১৯৯৩ সালে ইডেন গার্ডেনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১২ রানের বিনিময়ে ৬ উইকেট।

১০. সনাথ জয়সুরিয়া – ৩২৩ টি
সনাথ জয়সুরিয়া সীমিত ওভারের ক্রিকেটে একজন সর্বশ্রেষ্ঠ অল-রাউন্ডার হিসেবে পরিগণিত হয়ে আছেন। ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি বোলিংয়ে তাঁর সুখ্যাতি অনেক ছড়িয়ে। তাঁর ছন্দনাম মাস্তার-ব্লাস্টার। তিনি মোট ৪৪৫ ম্যাচ খেলে ৩২৩ উইকেট শিকার করেছেন। ২০ মার্চ ১৯৯৩ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিনি ২৯ রানের বিনিময়ে ৬ উইকেট গ্রহণ করেন এটি ছিল তাঁর সেরা বোলিং ফিগার।
Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 0 - Rating 0 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)