জেনে নিন রোনাল্ডো সম্পর্কে অবাক করা কিছু তথ্য

ফুটবল দুনিয়া 19 Mar 2019 at 2:25pm 238
Googleplus Pint
জেনে নিন রোনাল্ডো সম্পর্কে অবাক করা কিছু তথ্য
রোনাল্ডোকে চেনেন? হ্যাঁ, ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডোর কথা বলছি৷ ফুটবলের এক জীবন্ত কিংবদন্তির নাম সিআর সেভেন৷ একনজরে জেনে নিন রোনাল্ডো সম্পর্কে অবাক করা কিছু তথ্য-

নামকরণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট: ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো দস সান্তোস ১৯৮৫ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি পর্তুগালের মাদেইরা দ্বীপে জন্মগ্রহণ করেন৷ রাঁধুনি মা ও পৌরসভার মালি ও একজন খণ্ডকালীন ফুটবল কিটম্যান বাবা তাঁদের চতুর্থ ও কনিষ্ঠ সন্তানের নাম রেখেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যানের নাম অনুসারে৷

দুরন্ত রোনাল্ডো: দুরন্ত ছিলেন ছোটবেলা থেকেই৷ স্কুলে জনপ্রিয়ও ছিলেন৷ তবে একবার এক শিক্ষকের সঙ্গে বেয়াদবিও করেন৷ চেয়ার ছুঁড়ে মারেন৷

হার্টের সমস্যা: ছোটবেলাতেই ফুটবল খেলা শুরু করেন রোনাল্ডো৷ প্রথমে তাঁর বাবা যে ক্লাবের কিটম্যান ছিলেন, সে ক্লাবেই৷ এরপর দু’বছর খেলেন নাৎসিওনালে৷ ১২ বছর বয়সেই তিনি স্পোর্টিং সিপি’র সঙ্গে চুক্তি করেন দেড় হাজার ইউরোতে৷ কিন্তু সমস্যা দেখা দেয় তাঁর হৃৎপিণ্ডে৷ তাঁর হার্ট রেট সাধারণের চেয়ে বেশি ছিল, যাকে বলা হয় রেসিং হার্ট৷ সে সময় একটি অপারেশনের মধ্য দিয়ে যেতে হয় তাঁকে৷

মায়ের সঙ্গে চুক্তি: ১৪ বছর বয়সে রোনাল্ডো টের পান যে তিনি প্রাক-পেশাদার ফুটবল খেলার সামর্থ্য রাখেন৷ তখন মায়ের সঙ্গে চু্ক্তি করেন যে, পড়ালেখায় আপাতত ইস্তফা দেবেন এবং ফুটবলে মনোযোগ দেবেন৷

এক সিজনেই সব: ১৬ বছর বয়সে তিনি স্পোর্টিংয়ের যুব দলে সুযোগ পান৷ এরপর এক সিজনেই তিনি অনূর্ধ্ব-১৬, অনূর্ধ্ব-১৭, অনূর্ধ্ব-১৮ ও মূল দলে খেলেন৷ ২০০২ সালে প্রিমিয়ার লিগে অভিষেক হয় সিআর সেভেনের৷ প্রথম ম্যাচেই করেন দুই গোল৷ এরপর লিভারপুল, বার্সেলোনার ম্যানেজারদের সঙ্গে যোগাযোগ হয় তাঁর প্রতিনিধির৷ আর্সেনালের তৎকালীন ম্যানেজার আর্সেন ওয়েঙ্গারও দেখা করেন তাঁর সঙ্গে৷

চিনতে ভুল করেননি স্যার অ্যালেক্স: স্পোর্টিংয়ের কাছে ২০০৩ মৌসুমে ৩-১ গোলে হেরে যায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড৷ ম্যানইউ ম্যানেজার স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসন তখনই রোনাল্ডোকে দলে ভেড়ানোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করে নেন৷ এর জন্য ১.২২৪ কোটি ডলার খরচ করতে পিছপা হননি তিনি৷

থিয়েটার অফ ড্রিমসের সময়গুলো: ফার্গির আস্থার প্রতিদান দেন রোনাল্ডো ২০০২-০৩ থেকে ২০০৮-০৯ মৌসুম পর্যন্ত রেড ডেভিলদের হয়ে ২৫৯ ম্যাচে ১১৩টি গোল করে৷ শুধু তাই নয়, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে পরপর তিনটি লিগ, একটি এফএ কাপ, একটি লিগ কাপ, একটি কমিউনিটি শিল্ড, একটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ও একটি ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ জেতান ক্রিস্টিয়ানো৷

গ্যালাকটিকোদের দলে: ইংল্যান্ড জয়ের পর এরপর স্পেন পাড়ি জমান সিআর সেভেন৷ সে সময়ের রেকর্ড ৮ কোটি পাউন্ড ট্রান্সফার ফি’তে ২০০৯-১০ মৌসুমে যোগ দেন রেয়াল মাদ্রিদে৷ ২০১৭-১৮ মৌসুম পর্যন্ত ৪৩৮টি ম্যাচ খেলে ৪৫০টি গোল করেন গ্যালাকটিকোদের হয়ে৷ শিরোপা জিতেছেন, দুটি লা লিগা, দুটি কোপা ডেল রে, দুটি সুপারকোপা ডে এসপানা, চারটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, দুটি উয়েফা সুপার কাপ ও একটি ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ডকাপের৷

এবার ইটালিতে: ইংল্যান্ড ও স্পেনে পৃথিবীর সেরা তিন লিগের দু’টি জয় করা শেষ৷ তাই তিনিই যে নাম্বার ওয়ান তা প্রমাণ করতে এবার ২০১৮-১৯ মৌসুমে ইটালিতে পা রাখেন ক্রিস্টিয়ানো৷ ইয়ুভেন্তুসে ১০ কোটি ইউরোর ট্রান্সফার ফিতে যোগ দেন তিনি৷

জাতীয় দলের রোনাল্ডো: লিওনেল মেসির মতো রোনাল্ডোরও পর্তুগালের হয়ে বিশ্বসেরার মুকুট পরা হয়নি৷ কিন্তু একক নৈপুণ্যে না হলেও তাঁর কারণেই পর্তুগাল ইউরো ২০১৬-এর শিরোপা জেতে, যদিও ফ্রান্সের বিপক্ষে ফাইনালে তিনি খেলেছেন মাত্র ২৫ মিনিট৷ শুধু তাই নয়, তিনি তাঁর দেশের পক্ষে এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলেছেন এবং সবচেয়ে বেশি গোল করেছেন৷

ব্যক্তিগত অর্জন: মেসির মতো রোনাল্ডোও চারবার বালঁ দর (ফিফা বালঁ দর ও বালঁ দর) জিতেছেন৷ আর ২০০৮-এ হয়েছেন ফিফা বর্ষসেরা হয়েছেন৷ এছাড়া অসংখ্য পুরস্কার জিতেছেন তিনি তাঁর ক্যারিয়ারে৷ ওয়ার্ল্ড সকার ম্যাগাজিনের বর্ষসেরা নির্বাচিত হয়েছেন রেকর্ড ৫ বার৷ তিনবার ইউরোপ সেরা নির্বাচিত হয়েছেন৷ ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু জিতেছেন চারবার৷

ব্যক্তিগত জীবন: রোনাল্ডোর ব্যক্তিগত জীবন বর্ণময়৷ বিয়ে করেননি৷ সম্পর্ক গড়েছেন ও ভেঙেছেন একাধিকবার৷ তাঁর চার সন্তান৷ প্রথম সন্তানের মাতৃপরিচয় প্রকাশ করেননি৷ পরের দুই সন্তান জমজ৷ যুক্তরাষ্ট্রে গর্ভ ভাড়া করে এই সন্তানের জন্ম দেন তিনি৷ সবশেষ স্প্যানিশ বান্ধবী জর্জিনা রদ্রিগেজের সঙ্গে আরেক সন্তান আছে তাঁর৷ রোনাল্ডোর বিরুদ্ধে কর ফাঁকির অভিযোগ রয়েছে৷ এছাড়া ধর্ষণের অভিযোগও এনেছেন এক নারী৷

সূত্র: ডয়চে ভেলে
Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 0 - Rating 0 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)