ধর্ষণের অভিযোগে পর্তুগাল জাতীয় দল থেকে বাদ রোনালদো!

ফুটবল দুনিয়া 5th Oct 18 at 10:53am 853
Googleplus Pint
ধর্ষণের অভিযোগে পর্তুগাল জাতীয় দল থেকে বাদ রোনালদো!
সম্প্রতি ক্যাথরিন মায়োরগা নামের এক নারী সিআর সেভেনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তুলেন। এরপর তোলপাড় পড়ে যায় সারা বিশ্বে। পুলিশ নতুন করে মামলাটির ফাইল খুলে তদন্তে নেমেছে। ৯ বছর আগের কৃতকর্মের ফলে নতুন করে অভিযোগ ওঠার পর জাতীয় দল থেকে বাদ পড়লেন সুপারস্টার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।

চলতি অক্টোবরে পোল্যান্ড ও স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি ফ্রেন্ডলি ম্যাচের দলে নাম নেই সিআর সেভেনের। এমনকী নভেম্বরের আন্তর্জাতিক ম্যাচগুলোতেও তাকে জাতীয় দলে দেখা না যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।

পর্তুগাল কোচ স্যান্তোস অবশ্য রোনাল্ডোর জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন। তিনি শুধু বলেছেন, 'আমরা তাকে (রোনালদো) এই দুটি ম্যাচের স্কোয়াডে না রাখার সিদ্ধান্তে একমত হয়েছি। সে আমাদের সঙ্গে থাকছে না। '

ঠিক কী কারণে রোনালদোকে দল থেকে বাদ দেওয়া হলো, সে ব্যাপারে একটি শব্দও উচ্চারণ করতে রাজী হনন স্যান্তোস।তবে দুয়ে দুয়ে চার মিলিয়ে এর কারণ হিসেবে ধর্ষণের অভিযোগকেই দায়ী করে সংবাদ প্রকাশ করেছে 'টাইমস', 'সিএনএন', 'নিউইয়র্ক পোস্ট' এর মতো সংবাদমাধ্যমগুলো।

জার্মান ম্যাগাজিন 'স্পিগ্যাল' এ প্রকাশিত খবর অনুয়ায়ী, ২০০৯ সালে লাস ভেগাসের হোটেলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মায়োরগা নামের তরুণীর সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে ছিলেন পর্তুগিজ ফুটবলের পোস্টার বয়।

এরপর তাকে লাস ভেগাসের একটি হোটেলে নিজের রুমে আমন্ত্রণ জানান তিনি। সেখানে জোরপূর্বক মায়োরগার সঙ্গে রোনালদো বিকৃত যৌনাচারে লিপ্ত হন। এই ঘটনার পরের দিন থানায় অভিযোগও দিয়েছিলেন মায়োরগা।

বর্তমানে স্কুল শিক্ষক মায়োরগা দাবি করেছেন, ধর্ষণের পর মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে তার মুখ বন্ধ করা হয়েছিল। ৯ বছর আগে আউট অফ দ্য কোর্ট সেই বোঝাপড়া নিয়েই এখন প্রশ্ন তুলে দিয়েছেন তিনি।

রোনালদো অবশ্য পুরো ঘটনাই অস্বীকার করে নিজেকে নির্দোষ বলে জানিয়েছেন। ঘটনায় দুজনের সম্মতি ছিল বলেই রোনালদো আইনজীবী বিবৃতি দিয়েছেন। ঘটনাটি নিয়ে এবার নতুন করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

সূত্রঃ কালের কন্ঠ
Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 0 - Rating 0 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)