কানের ভেতরই রাখা যাবে আস্ত এক কম্পিউটার

নতুন প্রযুক্তি April 24, 2016 1,157
কানের ভেতরই রাখা যাবে আস্ত এক কম্পিউটার

মনে করুন আপনি সাঁতার কাটছেন। আপনার কানের ভেতর একটা ছোট্ট কম্পিউটার লাগানো রয়েছে, যা পানির তলাতেই আপনাকে গান শোনাচ্ছে, আবার আপনার হৃৎস্পন্দন মাপছে। এ অদ্ভুত যন্ত্রটির নাম ‘দ্য ড্যাশ’। যার আবিষ্কারক হল নিকোলিড যিনি শুধু অ্যাথলেটই নন, তিনি একাধারে একজন প্রযুক্তিবিদ এবং ব্রাজি নামে একটি প্রতিষ্ঠানের প্রধান কার্যনির্বাহী । আর এটি দেখতে একটি তারহীন ইয়ারফোনের মতো।


দিন দিন নতুন নতুন চিপস আবিষ্কার হয়েছে, আর সেই সঙ্গে কমেছে কম্পিউটারের আকারও। তবে যত ছোটই হোক, একটা আস্ত কম্পিউটার কানের ভেতর রাখা যাবে ভাবতেই কেমন লাগে!


নিকোলাই ভিড আগে ছিলেন একটি ডিজাইন সংস্থার প্রধান। দু’বছর ধরে তিনি তার ইন-ইয়ার ইয়ারফোনের ধারণাটি নিয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ঘুরেছেন কিন্তু কোনো বিনিয়োগকারী খুঁজে পাননি। শেষে তিনি একটি ক্রাউডফান্ডিং প্ল্যাটফর্মের দ্বারস্থ হন। তাদের কল্যাণেই তিনি আইডিয়াটি বাস্তবে পরীক্ষা করার সুযোগ পান। এ পরীক্ষাটি ছিল গ্রাহকরা যন্ত্রটি পছন্দ করবেন কিনা। এতে প্রচুর সাড়া পান তিনি। সাত সপ্তাহের মধ্যে প্রায় ষোলো হাজার মানুষ পঁচিশ লাখ ইউরোর বেশি বিনিয়োগ করেন। তাও আবার নিকোলাই-এর পণ্যটি একবারও হাতেকলমে পরখ না করেই। অবশেষে এমন একটি পণ্য তৈরি হয়েছে, যা তিনটি সাইজে পাওয়া যাবে। আর তা ব্যবহার করা যাবে সব ধরনের কানে।


তিনি বলেন, ‘দ্য ড্যাশ তৈরি করাটা একটা বিশাল চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। আমরা এখনো ড্যাশের পূর্ণাঙ্গ রুপ দিতেই কাজ করে যাচ্ছি। এটা আসলে একটা অতি ছোট কম্পিউটার, যার ক্ষমতা বছর পনেরো আগের ল্যাপটপের মতো। কিন্তু ডিভাইসটা এতো ছোট যে, তা কানের ওপরে না লাগিয়ে, কানের ভেতরেই রাখা যায়৷ সেখান থেকে ডিভাইসটা যে শুধু আপনার মনোরঞ্জন করবে তা নয়, আপনার কাজে সহযোগিতা করবে এমনকি আপনার স্বাস্থ্যের খেয়াল রাখবে।’


ড্যাশ নিয়ে কাজ করছে নিকোলাসসহ তার ৪০ বন্ধু। ড্যাশ বাজারে পাওয়া যাবে তিনটি সাইজে। তাই যে কোনো কানেই ব্যবহার করা যাবে এটি। ড্যাশের মূল্য কেমন হতে পারে তা নিয়ে কোন তথ্য দেয়নি নিকোলাইয়ের প্রতিষ্ঠান ব্রাজি।