ইন্টারভিউতে সফল হতে গেলে…

চাকুরি প্রস্তুতি 2nd Jul 18 at 10:32am 1,048
Googleplus Pint
ইন্টারভিউতে সফল হতে গেলে…
ছাত্রজীবন পার করে এসে সবারই স্বপ্ন একটি ভালোমানের সম্মানজনক চাকরি। কিনতু চাকরি যে সোনার হরিণ সেটা কে না জানে! এই সোনার হরিণকে ধরতে প্রতিটি ব্যক্তিকে অনেক চড়াই-উতরাই আর যোগ্যতার পরিচয় দিতে হয়। একজনকে যাচাই না করে তো কোনো প্রতিষ্ঠান কাউকে নিয়োগ দেবে না। এই যাচাই প্রক্রিয়ার গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো ইন্টারভিউ। সেখানে সফলতার জন্য মাথায় রাখতে হবে এই বিষয়গুলো-

নিজেকে তৈরি করে রাখুন

চাকরি পাওয়া একমদই সহজ নয়। কিন্তু ধরুন সব প্রক্রিয়া শেষে আপনার এখন ইন্টারভিউ মোকাবেলা করা বাকি। এই ধাপ পেরোলেই হয়তো কাঙ্ক্ষিত কর্মজীবনে পা দিতে পারবেন। এজন্য নিজেকে তৈরি করুন। পড়াশুনা করুন, আশেপাশের সব খোঁজখবর রাখতে শুরু করুন, যে বিষয়টি জানা প্রয়োজন সেটি জেনে নিন। শুধু বাহ্যিকভাবে পরিপাটি না হয়ে মাথায় কিছু বিষয় ঢুকিয়ে নিয়ে যান।

ভয় লাগলে জোরে শ্বাস নিন

যেকোনো কঠিন পরিস্থিতি সামলাতে জোরে বুক ভরে শ্বাস নিলে মাথাটা হালকা হয়ে যায়। ইন্টারভিউ রুমে ঢোকার প্রস্তুতি হিসেবে শ্বাস নিয়ে এভাবে ব্যায়াম করে দেখুন। আগে বড় করে নিঃশ্বাস নিন। এবার শ্বাস ছাড়ুন অল্প অল্প করে। কয়েকবার এরকম করলে দেখবে আপনার চাপ কমবে, আত্মবিশ্বাস বাড়বে, মনকে শান্ত করবে।

রুমে ঢুকে নিয়ম মেনে বসুন

ফরমালিটি মেনে ঢোকার পরে আপনাকে সুন্দর করে বসতে হবে। আপনার বডি ল্যাঙ্গুয়েজই আপনার ব্যক্তিত্বকে ফুটিয়ে তুলবে। পরীক্ষা গ্রহণকারীর সামনে আত্মবিশ্বাস নিয়ে বসুন, জড়তা রাখবে না, সোজা হয়ে তাদের চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলতে হবে। প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে হাসিমুখে। কিছুতেই ঘাবড়ানো যাবে না।

কিছুতেই মুখ বেজার রাখা যাবেনা

মুখে মার্জিত হাসি ধরে রাখতে হবে। ঘাবড়ে গেলেও সেটা প্রকাশ করা যাবে না। পুরোটা সময় ভারমুক্ত হয়ে থাকুন। তাদের প্রশ্নের উত্তরগুলো ভালো বা খারাপ যেভাবেই দিতে পারে না কেন, মন খারাপ করে ফেলবেন না। আপনার কোনো চিন্তা তাদের কাছে প্রকাশ করবেন না। হাসিমুখে আলাপ শেষ করে ভদ্রভাবে বিদায় নেওয়ার চেষ্টা করুন।

নেতিবাচক মনোভাব রাখবেন না

অনেকেই দেখা যায় যে ইন্টারভিউ দিতে এসে প্রার্থীদের প্রস্তুতি, আচার ব্যবহার, আলোচনা দেখে ভয় পেয়ে যান। ভাবেন অন্য প্রার্থীরা তাঁর থেকে বেশি যোগ্য, বেশি জানেন। এতে করে আত্মবিশ্বাস একেবারেই চলে যায়। তাই আপনি নিজে যা জানেন, সেটা নিয়েই সন্তুষ্ট থাকুন। কারণ এই সময় ঘাবড়ে গেলে আপনার পুরো প্রস্তুতিই নষ্ট হয়ে যাবে।

না পারলে ‘জানি না’ বলুন

আপনাকে যে সব প্রশ্নের উত্তর জানতে হবে এমন কোনো কথা নেই। যে প্রশ্নের উত্তর জানেন না, তা ঘুরিয়ে পেচিয়ে অন্যকিছু বলে আমতা আমতা করবেন না। উত্তর না জানলে সরাসরি ‘জানি না’ বা ‘দুঃখিত, আমার জানা নেই’ বলে দিন। আপনাকে দ্বিধাগ্রস্ত দেখলে প্রশ্নকর্তাদের কাছে আপনার ব্যক্তিত্ব নষ্ট হবে, স্মার্টনেস থাকবে না।

সবসময় ইতিবাচক থাকুন

যে পরিস্থিতিই আসুক না কেন, ইতিবাচক থাকবেন। আপনাকে নিয়োগ দিতে হলে তো প্রশ্নকর্তারা আপনাকে যাচাই করবেই। তাই বিভিন্ন অদ্ভুত প্রশ্ন আর পরিস্থিতি তৈরি করে আপনাকে কিছুটা দ্বিধাগ্রস্থ করে দিতে পারে। কিন্তু তাতে করে মন-মেজাজ খারাপ করে ফেলবেন না বা উল্টাপাল্টা ব্যবহার করে বসবেন না। -বাংলা ইনসাইডার
Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 0 - Rating 0 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)