সৌন্দর্য চর্চায় চন্দনের ব্যবহার

রূপচর্চা/বিউটি-টিপস December 21, 2017 988
সৌন্দর্য চর্চায় চন্দনের ব্যবহার

ব্রণ, মুখে দাগ কিংবা শুষ্ক ত্বকের ঝামেলায় ভুগছেন? বাণিজ্যিক বিভিন্ন ধরনের রূপচর্চা সামগ্রীর পেছনে না ছুটে চন্দন গুঁড়ো ব্যবহার করা শুরু করুন। এটি ত্বকের যেকোন সমস্যা দূর করার পাশাপাশি ত্বককে মোহনীয় ও লাবণ্যময় করে তুলবে।


→ মুখের দাগ সারানোর জন্যে

মুখে ব্রণ, র‌্যাশ কিংবা ব্যথ্যা পেলে এক ধরনের বিশ্রী দাগ থেকে যায়। চন্দন মুখের দাগ খুব সহজেই তুলে ফেলে।


ব্যবহার প্রণালী

- এক টেবিল-চামচ হলুদ, এক টেবিল-চামচ চন্দন গুঁড়ো এবং এক চা-চামচ দুধের পেস্ট বানান।


- মুখে আলতোভাবে ম্যাসাজ করুন এবং সারারাত রেখে দিন।


- পরদিন সকালে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।


- মুখের দাগ সম্পূর্ণ না কমে যাওয়া পর্যন্ত এটি ব্যবহার করতে থাকুন ।


→ ব্রণ দূর করতে

ত্বকে অত্যধিক তেল উৎপন্ন হলে কিংবা ধুলোবালি লাগলে রোমকূপ বন্ধ হয়ে ব্রণের সৃষ্টি করে। চন্দন গুঁড়োর নিয়মিত ব্যবহার মুখের ব্রণ নিমিষেই ভালো করে।


ব্যবহার প্রণালী

এক টেবিল-চামচ চন্দন গুঁড়ো, এক চা-চামচ দুধ, এক চিমটি হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে পেস্ট বানান। এবার এটি পুরো মুখে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। অতঃপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।


→ রোদে পোড়া ভাব দূর করতে

চন্দন গুঁড়ো রোদে পোড়া ভাব দূর করে এবং দাগ কমাতে সাহায্য করে।


ব্যবহার প্রণালী

এক টেবিল-চামচ চন্দন গুঁড়ো এবং এক চা-চামচ মধু কিংবা দুধের পেস্ট বানান। এবার এটি পুরো মুখে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত তিনবার এ মাস্ক ব্যবহার করুন।


→ বয়সের ছাপ কমাতে

এক টেবিল-চামচ মধু, দুই টেবিল-চামচ চন্দন গুঁড়ো এবং একটি ডিমের কুসুম মিশিয়ে একটি পেস্ট বানান। পুরো মুখে লাগিয়ে এক ঘণ্টা পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ত্বক টানটান করে ভেতর থেকে উজ্জ্বল করতে সাহায্য করবে এ মাস্ক।


→ শুষ্ক ত্বক পুনরুদ্ধারে

শুষ্ক ও ফ্যাকাসে ত্বক মুখের সৌন্দর্য নষ্ট করে দেয়। এটি পুনরুদ্ধার করতে চন্দন গুঁড়োর জুড়ি নেই। সপ্তাহে দুইদিন শুধু চন্দন গুঁড়ো পানিতে মিশিয়ে পেস্ট বানান। এবার ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।