কাঁচা আমের গুণাবলী

ফলের যত গুন April 25, 2017 979
কাঁচা আমের গুণাবলী

‘ঝড় এলো এলো ঝড়, আম পড় আম পড়, কাঁচা আম ডাঁসা আম, টক টক মিষ্টি। এই যা, এলো বুঝি বৃষ্টি’। শৈশব থেকেই এমনই টক, মিষ্টি আমের ছড়া গান শুনেই কেটেছে আমাদের সময়।


কখনও আবার ঝড়ের দিনে মামার দেশে আম কুড়ানোর মধুর স্মৃতি আর সেই গল্পের চরিত্র হয়েই আমাদের শৈশবের সুন্দর সময় কেটেছে। কখনও আবার গ্রীষ্মের কাঠ ফাটা রোদে বসে জিভে জল আনা আমের ভর্তা হয়েছে একমাত্র সেই সময়ের সঙ্গী।


আবার কখনও বা মায়ের হাতের বানানো আম আর কাসুন্দি দিয়ে জমে উঠেছে বিকাল। আমের আচারেও আছে নানা বাহার। টক, মিষ্টি, ঝাল যে কোন স্বাদের আমের আচারই সবার কাছে প্রিয়। এসব কিছু ছাড়াও আমের আছে আরও অনেক গুণাবলী। যা আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী।


কাঁচা আমে রয়েছে এসিডিটির বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা। খাদ্যভাসের জন্য অনেক মানুষই এ এসিডিটিজনিত সমস্যায় ভুগে থাকেন। কিন্তু আমে রয়েছে একে প্রতিরোধ করার ক্ষমতা। অনেকেই ভেবে থাকেন যে কাঁচা আমের কারণেই এসিডিটি কিংবা গ্যাসস্ট্রিকের সমস্যা হয়ে থাকে। কিন্তু এটি মূলত সমস্যার সমাধান করে থাকে। এর পাশাপাশি এই গরমে কাঁচা আম পূরণ করতে পারে আপনার শরীরের পানীয় ঘাটতি।


আমাদের মাঝে অনেকেই গরমের তাপে অতিষ্ঠ হয়ে বাইরের খোলা পানীয় পান করে থাকেন। এর পরিবর্তে আপনি কাঁচা আমের শরবত কিংবা কাঁচা আম খেতে পারেন। এটি আপনার শরীরের তাপমাত্রা ঠিক রাখবে এবং সঙ্গে সঙ্গে আপনাকে করে তুলবে নিমিষেই তরতাজা।


গরমের এ সময়ের আরেকটি সমস্যা হচ্ছে খাবার এবং আপনার মুখের রুচি। গরমের কারণে মুখে অরুচি চলে আসে। খাবার খেতে একদমই ভালো লাগে না। সেই ক্ষেত্রে কাঁচা আম আপনার শরীরে জাদুর মতো কাজ করবে। যাদের মুখে অরুচি আছে তারা কাঁচা আম খেতে পারেন এটি আপনার মুখের স্বাদ ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করবে।


এ ছাড়া পেটের সমস্যা দূর করতেও কাঁচা আমের জুড়ি নেই। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যজনিত সমস্যা আছে তাদের জন্য কাঁচা আমের শরবত উপকারী। ওজন কমাতেও কাঁচা আম আপনাকে নানাভাবে সাহায্য করবে। কাঁচা আমে প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি কম থাকে, তাই ওজন কমাতে এটি নানাভাবে সাহায্য করে।


এ ছাড়া এতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, যা রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা গড়ে তোলা এবং পাশাপাশি মাড়ির ক্ষয়রোধ করে। এর পাশাপাশি এতে রয়েছে প্রচুর বিটা ক্যালোরিন যা হার্টের রোগীদের জন্য বিশেষভাবে উপকারী। এ ছাড়া এ সময়ে জ্বর হলে কিংবা রক্তের সমস্যা দূর করতে কাঁচা আমের জুড়ি নেই।


মৌসুমি ফল হিসেবে কাঁচা আমের তুলনা হয় না। এটি খেতে যেমন সুস্বাদু তেমনি রসালো এবং মুখরোচক একটি ফল। এ ছাড়া মৌসুমের সময় মৌসুমের ফল খাওয়া স্বাস্থ্যর জন্য উপকারী। তাই শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে আর সুস্থ থাকতে মৌসুমি ফল খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।