ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আমপাতার রস ও গুড়ো

সাস্থ্যকথা/হেলথ-টিপস March 22, 2017 550
ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আমপাতার রস ও গুড়ো

ডায়াবেটিস কী? একে রোগ বললেও আদৌ কি এটা রোগ? একেবারেই না। এটা একটা অবস্থা, যাতে রোগীর শরীর ধীরে ধীরে অকেজ হতে শুরু করে। আরও সহজ করে বললে, ঠিক সময়ে ডায়াবেটিসের চিকিৎসা শুরু না করলে একে একে নানা অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ অকেজো হতে শুরু করে। আর এক সময় এসে রোগী মৃত্যু মুখে ঢলে পড়ে।


প্রসঙ্গত, ইনসুলিন ঠিক মতো কাজ করতে না পারার কারণে শরীরে শর্করার মাত্রা বেড়ে গেলে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়। আর যেমনটা আগেও বলেছি দীর্ঘদিন ধরে যদি শরীরে শর্করার মাত্রা বেশি থাকে, তাহলে প্রথমেই কিডনির উপর কু-প্রভাব পড়ে। তারপর ধীরে ধীরে নার্ভ, হার্ট, দৃষ্টিশক্তি সব খারাপ হতে শুরু করে।


কীভাবে ডায়াবেটিসকে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব? অনেক আধুনিক ওষুধ আছে, যা খাওয়ার পাশাপাশি যদি নিদির্ষ্ট ডায়েট চার্ট মেনে খাবার খাওয়া যায়, তাহলে এই মারণ অবস্থাকে অনেকটাই কাবু করে রাখা সম্ভব। তবে এই লেখায় আলোচিত ঘরোয়া পদ্ধতিটিকে যদি কাজে লাগান, তাহলে সুফল পাবেন অনেক তাড়াতাড়ি। কীভাবে? চলুন জেনে নেওয়া যাক সে সম্পর্কে।


উপকরণ

১. আম পাতা- ১১-১২টা

২. জল- ২ গ্লাস


ধাপ ১

একটা বাটিতে দেড় গ্লাস পানি নিয়ে ফোটান। ৫ মিনিট পানিটা গরম করার পর তাতে আম পাতাগুলি দিয়ে ১৫ মিনিট অল্প আঁচে পানিটা ফোটাতে থাকুন। প্রসঙ্গত, আম পাতাগুলি ভাল করে ধুয়ে নিয়ে তারপর ব্যবহার করবেন কিন্তু!


ধাপ ২

সময় হয়ে গেলে আঁচটা বন্ধ করে পানিটা ঠান্ডা করে নিন। যখন দেখবেন পানিটা একেবারে ঘরের তাপমাত্রায় এসে গেছে। তখন সেটি একটা বোতলে সংগ্রহ করে সারা রাত রেখে দিন। সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর খালি পেটে এই পানিটা পান করুন।


কতদিন খেতে হবে? টানা ১-২ মাস ওষুধটি খেতে হবে। তাহলেই দেখবেন উপকার পেতে শুরু করবেন।


আরেকটি ওষুধ

আম পাতাগুলি শুকিয়ে নিয়ে সেগুলি গুঁড়ো করে পাউডার বানিয়ে নিন।


কতবার খেতে হবে?

প্রতিদিন সকালে এবং বিকালে এক চামচ করে এই গুঁড়ো খেলে প্রথম ওষুধটির মতোই উপকার পাবেন।


কী কী উপকার পাবেন?

আম পাতায় রয়েছে প্রচুর মাত্রায় খনিজ, এনজাইম, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন। এই উপাদানগুলি শরীরে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি অ্যাস্থেমা, ব্রঙ্কাইটিস, ভেরিকোস ভেন, ইনসমনিয়া, জ্বর এবং ডায়ারিয়ার প্রকোপ কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।