রাতের এই ৬টি কাজ দেবে সুন্দর ত্বক

রূপচর্চা/বিউটি-টিপস March 1, 2017 820
রাতের এই ৬টি কাজ দেবে সুন্দর ত্বক

সুন্দর পরিষ্কার ত্বক সব নারীর কাম্য। ব্রণমুক্ত, দাগহীন ত্বক কে না পেতে চায় বলুন? কিন্তু ত্বকের যত্নের ব্যাপার অনেকেই থাকেন উদাসীন। সুন্দর ত্বক পেতে হলে ত্বকের যত্নে কিছু না কিছু করার প্রয়োজন পড়ে। যত্ন নিতে খুব বেশি আলসেমী লাগলে প্রতি রাতে কিছু কাজ করুন যা আপনাকে দেবে সুন্দর ত্বক। আসুন জেনে নেয়া যাক রাতে ঘুমানোর আগে ত্বক পরিষ্কারের জন্য অবশ্যই করণীয় কিছু কাজ সম্পর্কে।


১। মুখ পরিষ্কার করা

সারাদিন কর্মব্যস্ত দিন কাটানোর পর শরীরের সাথে সাথে ত্বকও ক্লান্ত হয়ে পড়ে। ধুলাবালি, ময়লা ত্বকে জমে ত্বকের ছিদ্র বন্ধ করে দেয়। তাই রাতে ত্বক পরিষ্কার করা বেশ জরুরি। ঘুমাতে যাওয়ার আগে মুখ পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ পরিষ্কার করতে হবে এমনটি নয়। শুধু পানি দিয়ে মুখটি ধুয়ে নিতে পারেন।


২। মেকআপ তুলে ফেলুন

আলসেমী করে অনেকে মেয়েরাই মেকআপ না তুলে ঘুমিয়ে পড়ে। আর তখনই ত্বকের সবচেয়ে বড় ক্ষতি করে থাকেন তারা। মেকআপের কারণে ত্বকের ছিদ্রে ময়লা জমে বন্ধ হয়ে যায়। যা আস্তে আস্তে ত্বকে বলিরেখা ফেলে দিয়ে থাকে। তাই ঘুমাতে যাওয়ার আগে অবশ্যই মেকআপ তুলে ফেলুন।


৩। চুল বাঁধা

চুল খোলা রেখে রাতে ঘুমাতে যাবেন না। এই কাজটি করা থেকে বিরত থাকুন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে ভাল করে চুল আঁচড়ে নেওয়া উচিত। এতে মাথার তালুতে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক থাকবে। এরপর উচু করে খোঁপা বা বেনী করে ফেলুন। চুলে ময়লা এবং তেল থাকে যা ত্বকে চলে এসে ত্বকে ব্রণ সৃষ্টি করে।


৪। আই ক্রিম ব্যবহার

আপনি যদি দিনের একটি সময় ল্যাপটপ, কম্পিউটার বা টিভি সেটের সামনে কাটিয়ে থাকেন, তবে আপনার চোখে ফোলা ফোলাভাব চলে আসবে। এই চোখের নিচের কালি বা ফোলা ফোলা ভাব দূর করার জন্য আই ক্রিম ব্যবহার করুন। এটি চোখের চারপাশে ত্বক হাইড্রেটেড রাখতে সাহায্য রাখে।


৫। ত্বক ময়েশ্চারাইজ করা

সকাল এবং রাতে দুইবেলা নিয়মিত ত্বক ময়েশ্চারাইজ করুন। হালকা বা অরগানিক ময়েশ্চারাইজ ত্বক থেকে মৃত কোষ, ময়লা দূর করে দেয়। তবে ত্বকের ধরণ অনুযায়ী ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা উচিত। রাতের ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার পরের দিন সুন্দর ত্বক পেতে সাহায্য করবে।


৬। ঠোঁটের যত্ন

মুখের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হলো ঠোঁট। তাই এই ঠোঁটকে অবহেলা করা যাবে না একদমই। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ঠোঁটে লিপবাম, অলিভ অয়েল বা এসেনসিয়াল অয়েল ব্যবহার করুন। এটি ত্বক হাইড্রেটেড করতে সাহায্য করে, ত্বক ফাটা রোধ করে।