পরীক্ষামূলকভাবে ওড়ার অনুমতি পেল উড়ুক্কু ট্যাক্সি

নতুন প্রযুক্তি June 11, 2016 872
পরীক্ষামূলকভাবে ওড়ার অনুমতি পেল উড়ুক্কু ট্যাক্সি

এবার চালক ছাড়াই আরোহীকে নির্দিষ্ট গন্তব্যে উড়িয়ে নিয়ে যাবে ট্যাক্সি। সম্প্রতি এমন এক প্রযুক্তির উড়ন্ত ট্যাক্সি আবিষ্কৃত হয়েছে। এবার সে ট্যাক্সি পরীক্ষামূলকভাবে কার্যক্রমও শুরু করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে।


ওড়ার উপযোগী এ চালকবিহনীন ট্যাক্সিকে বলা হচ্ছে হিউম্যান ড্রোন। এটি তৈরি করেছে চীনা প্রতিষ্ঠান ইহ্যাং। যানটির নাম দেওয়া হয়েছে পার্সোনাল এএভি যা, স্বয়ংক্রিয়ভাবে উড়তে সক্ষম যান। এ যানটি এ বছরের কনজিউমার ইলেক্ট্রনিক্স শোতে (সিইএস ২০১৬) উদ্বোধন করেছে নির্মাতারা।


মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেভাদা রাজ্যে টেস্ট ফ্লাইট পরিচালনার জন্য অনুমতি পেয়েছে এ যানটি। পরীক্ষা সফল হলে তা বাণিজ্যিকভাবে যাত্রী পরিবহনের অনুমতি পেয়ে যাবে, এমনটাই আশা নির্মাতাদের।


উড়ুক্কু এ যানটি চালানোর জন্য কোনো বাড়তি দক্ষতা কিংবা যোগ্যতা প্রয়োজন হবে না। এর কারণ হলো যানটি সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয়ভাবেই নির্দিষ্ট গন্তব্যে চলতে পারবে।


স্বয়ংক্রিয়ভাবে আকাশপথে যাত্রী পরিবহনে সক্ষম এ যানটিকে মূলত একটি বড় ড্রোন। এটি স্বল্প দূরত্বে সাধারণ ট্যাক্সির মতোই যাত্রী পরিবহনের কাজে লাগবে।


নেভাদার কর্মকর্তারা উড়ুক্কু যানটি আকাশে ওড়ার অনুমতির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তবে পরীক্ষামূলকভাবে ওড়ার সময় এতে আরোহী থাকবে কি না, সে বিষয়ে কিছু জানাননি তারা।


এ যানটি সফলভাবে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে বাজারে তা ১ লাখ ৪০ হাজার ডলার থেকে দুই লাখ ডলার মূল্যে বিক্রি হবে বলে আশা করছেন নির্মাতারা।


অদ্ভুত এ যানটিতে রয়েছে চারটি বাহু ও তাতে সংযুক্ত রয়েছে আটটি প্রপেলার। এটি প্রতি ঘণ্টায় ৬২ মাইল গতিতে চলতে পারে।


নির্মাতারা উড়ুক্কু যানটির নিরাপত্তার জন্যও সচেতন। কোনো যান্ত্রিক সমস্যায় পড়লে নিরাপদ স্থানে সহজেই ল্যান্ড করতে পারবে। এর নির্মাণ উপকরণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে বিভিন্ন হালকা যৌগ পদার্থ। এ ছাড়া কার্বন ফাইবার, ইপক্সি ও অ্যালুমিনিয়ামের ব্যবহার উল্লেখযোগ্য।


একজন মাত্র মানুষ ও তার সঙ্গে একটি ১৬ ইঞ্চি ব্যাগ বহন করা যাবে এতে। তবে পরবর্তীতে এর আরও বড় ভার্সন তৈরি করার ব্যাপারে আশাবাদী নির্মাতারা। তখন হয়ত একটি সম্পূর্ণ পরিবারও আকাশপথে এ যানে করে গন্তব্যে যেতে পারবে।