উড়বে যাত্রীবাহী ড্রোন ট্যাক্সি

নতুন প্রযুক্তি June 10, 2016 691
উড়বে যাত্রীবাহী ড্রোন ট্যাক্সি

প্রথমবারের মতো 'মানুষবাহী ড্রোন ট্যাক্সির' পরীক্ষামূলক উড্ডয়ন সম্পন্ন করার অনুমতি দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেভাডা অঙ্গরাজ্য কর্তৃপক্ষ।

বিবিসি জানায়, নেভাডা ইনস্টিটিউট ফর অটোনমাস সিস্টেম ড্রোনটির নির্মাতা চীনা প্রতিষ্ঠান ইহাং-কে ড্রোনটির পরীক্ষামূলক উড্ডয়ন চালানো এবং এর ফলাফল ফেডারেল এভিয়েশন সিস্টেম (এফএএ)-এর কাছে জমা দিতে সহায়তা চাওয়ার অনুমতি দিয়েছে। তবে, পরীক্ষামূলক উড্ডয়নের সময় এতে কোনো যাত্রী থাকবেন কিনা তা এখনও স্পষ্ট নয়।


এ বছরের কনজিউমার ইলেক্ট্রনিকস শো অনুষ্ঠানে এ ড্রোনের একটি নমুনা প্রদর্শন করা হয়। '১৮৪' নামের ১.২ মিটার দৈর্ঘ্য ও ২০০ কেজি'র এ স্বয়ংক্রিয় প্রটোটাইপ ড্রোনটিতে আটটি প্রপেলার রয়েছে। এটি ঘণ্টায় ৬০ মাইল গতিতে একজন যাত্রীকে ২৩ মিনিট ধরে পরিবহনে সক্ষম। যাত্রীরা তাদের আসনের সামনে থাকা ১২ ইঞ্চি আকারের টাচস্ক্রিনের সহায়তায় তাদের গন্তব্য ঠিক করে দেবেন, আর ড্রোনটির নিজস্ব কম্পিউটার ব্যবস্থা যাত্রাপথ বেছে নেবে। এতে যাত্রীদের জন্য কোনো ওভার-রাইড ফাংশন নেই, ফলে জরুরি ক্ষেত্রে যাত্রীরা এর নিয়ন্ত্রণ নিতে পারবেন না। আর যান্ত্রিক ত্রুটি ধরা পড়লে ড্রোনটি নিকটস্থ কোনো ফাঁকা জায়গায় অবতরণ করবে।


এ ড্রোনটির দাম ১,৪০,০০০ ইউরো থেকে ২,০০,০০০ ইউরোর মধ্যে রাখা হতে পারে বলে জানিয়েছে বিবিসি।


নেভাডা ইনস্টিটিউট-এর বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ডিরেক্টর মার্ক বার্কার বলেন, "আমি ব্যক্তিগতভাবে সে দিনটির অপেক্ষায় আছি, যখন ড্রোন ট্যাক্সি নেভাডার যাতায়াত ব্যবস্থার অংশে পরিণত হবে।"


এ দিকে, যাত্রীদের কাছে এ ড্রোন কতটা আবেদন রাখতে পারবে সে বিষয়ে সন্দিহান অনেকেই। অবশ্য এর নানা সম্ভাবনার নানা দিক তুলে ধরেছেন অনেকেই।


পরামর্শ সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান ম্যাককোয়েরি-এর সিনিয়র বিশ্লেষক ডগলাস ম্যাকনিল বলেন, "চালকবিহীন এয়ারক্রাফটে যাত্রীরা চড়ে বসতে ইচ্ছুক কিনা তা এখানে একটি বড় প্রশ্ন। সাধারণ ভোক্তারা নিয়ন্ত্রকদের মতামতে আস্থা রাখতে অভ্যস্ত। আর তারা যদি ড্রোনগুলোকে নিরাপদ বলে ঘোষণা করে, যাত্রীরা এতে আরও বেশি আগ্রহী হতে পারেন।"


লন্ডনের ইমপেরিয়াল কলেজের এরিয়াল রোবোটিক ল্যাবের পরিচালক ড. মিরকো কোভাক বলেন, "যাত্রী পরিবহনকারী ড্রোন অনেক সম্ভাবনাময় হতে পারে। আমার ধারণা, এ প্রযুক্তিটি আরও যোগ্যতার পরিচয় দিলে সমাজ এর ভয় কাটিয়ে উঠবে।"